মারাত্বক পরিবহণ সংকট চট্টগ্রামজুড়ে – Ctgnews
ctgnew

মারাত্বক পরিবহণ সংকট চট্টগ্রামজুড়ে

হাকিম মোল্লা: পরিবহনে শৃঙ্খলা বাড়াতে প্রশাসনের অভিযান চলছে নগরজুড়ে। অভিযানে আটক হয়েছে ২৪৮টি। মামলা হয়েছে ১১শ ৯৯টি । অভিযানের প্রথম দিনে পরিবহণ ধরপাকড়ে শৃঙ্খলা ফিরে আসার দৃশ্য দৃশ্যমান না হলেও দৃশ্যমান হয়েছে নগরজুড়ে মারাত্বক পরিবহণ সংকটের চিত্র।

গতকাল মঙ্গলবার দিনভর নগরীর বিভিন্ন রুট থেকে ২৪৮টি গাড়ি আটক করা হয়েছে। এছাড়া মামলা হয়েছে ১১শ ৯৯টি যানবাহনের বিরুদ্ধে। রুট পারমিটবিহীন গাড়ি চলাচল বন্ধসহ পরিবহন খাতের নানা অনিয়মের বিরুদ্ধে এই অভিযান।

সিএমপি অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) দেবদাস ভট্টাচার্য বলেছেন, গাড়ির ফিটনেস, রেজিস্ট্রেশন, রোড পারমিট, ইন্সুরেন্সসহ পরিবহনে শৃঙ্খলা বাড়ানোর জন্য মঙ্গলবার (১৮ জুলাই ) থেকে অভিযান শুরু হয়েছে চলবে আগামী ২২ জুলাই পর্যন্ত।’

অপর দিকে অভিযানের প্রতিবাদে নগরীর বায়েজিদ বোস্তামী সড়কে পরিবহন শ্রমিকেরা রাস্তায় নেমে পড়ে এবং সবধরণের গণপরিবহন চলাচল বন্ধ করে দেয়। প্রশাসনের এই ধরণের সাঁড়াশি অভিযানে গণপরিবহণ বন্ধ করে দেওয়ার হুমকী দেওয়া হলে সাধারণ যাত্রীরা জিম্মি হয়ে পড়েন। মারাত্বক পরিবহণ সংকটে পড়তে হয় ।

মুহুর্তে নগরীর বিভিন্ন রুটে গাড়ির সংখ্যা কমে যায়। বিশেষ করে অফিস ফেরত হাজার হাজার যাত্রী বাস ও টেম্পো না পেয়ে সিএনজি ট্যাক্সি ও রিকশায় গন্তব্যে যেতে বাধ্য হয়। অতিরিক্ত ভাড়া গুণতে অপারগ যাত্রীদের পায়ে হেঁটে বাসায় ফিরতে হয়।

বুধবার সকাল থেকে চট্টগ্রাম মহানগরীতে হঠাৎ করে গণপরিবহণ। ফলে দিনভর নির্দ্দিষ্ট গন্তব্যে যাতায়াত করতে না পেরে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে।

সরেজমিনে গত মঙ্গলবার থেকে বুধবার (১৯ জুলাই) এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দেখা গেছে অভিযান শুরুর পর রাস্তায় সব ধরণের গণপরিবহনের সংখ্যা অস্বাভাবিকভাবে কমে যায়। যানবাহন সংকটে সকাল থেকেই যাত্রীরা দুর্ভোগে পড়েন।

অভিযানের প্রতিবাদে নগরীর বায়েজিদ বোস্তামী সড়কে পরিবহন শ্রমিকেরা রাস্তায় নেমে পড়ে এবং সবধরণের গণপরিবহন চলাচল বন্ধ করে দেয়।

ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বেলা দুইটা পর্যন্ত নগরীর সবগুলো রুটে পরিচালিত সমন্বিত অভিযানে আটক দেড় শতাধিক যানবাহনের মধ্যে রয়েছে বাস, ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, টেম্পো ও সিএনজি ট্যাক্সি।

উপ কমিশনার (ট্রাফিক-উত্তর) মো. সুজায়েত ইসলাম জানান, রুট পারমিটবিহীন গাড়ি চলাচল বন্ধে নগর পুলিশ কর্তৃপক্ষ কঠোর অবস্থান নিয়েছে। এছাড়া মোড়ে মোড়ে এবং যত্রতত্র গাড়ি দাঁড়িয়ে যাত্রী ওঠানামা করানো, নির্ধারিত রুট অমান্য করা, ভুয়া লাইসেন্স কিংবা লাইসেন্সবিহীন গাড়ি চালানোসহ নানা অনিয়ম বন্ধে মঙ্গলবার (১৮ জুলাই) থেকে শুরু হওয়া এই অভিযান ২২ জুলাই পর্যন্ত চলবে।

তিনি জানান, রুট পারমিটবিহীন গাড়ি পাওয়া মাত্রই জব্ধ করা হচ্ছে। প্রথম দফায় ধরা পড়া এ ধরণের যানবাহন তিনদিন আটকে রাখা হবে। এরপরও যদি একই যানবাহন রাস্তায় চলাচল করে তাহলে এক সপ্তাহ আটক থাকবে। তৃতীয় দফায় ধরা পড়লে ওই যানবাহনের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।

সুজায়েত ইসলাম বলেন, মোড়ে মোড়ে ও যত্রতত্র থামিয়ে যাত্রী ওঠানামা করানোর অপরাধে যানবাহনের বিরুদ্ধে মামলা করা হচ্ছে। আর অবৈধ পার্কিং ও অবৈধ লাইসেন্সধারীদের বিরুদ্ধে জরিমানাসহ আইনি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

গাড়ির ফিটনেস, রেজিস্ট্রেশন, রোড পারমিটবিহীন বাস চলাচল বন্ধে বন্দর নগরীতে পুলিশের অভিযান চলে। অভিযানে খবর পেয়ে নগরীতে রাস্তায় নামায় নি। বাস, টেম্পু, মিনিবাস, রাইডারসহ সব ধরণের যাত্রীবাহী গাড়ি। এতে করে চরম দুর্ভোগে পড়েছে সাধারণ মানুষ। যে কয়েকটি গাড়ী চলছে তাও ভাড়া নিচ্ছে দ্বিগুণ।

বুধবার সকাল থেকে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায় প্রতিটি রুটে পরিবহন সংকট। ঘন্টার পর ঘন্টার রাস্তায় দাঁড়িয়ে থেকেও গন্তব্যে যেতে পারেননি অনেকে।

পতেঙ্গার কাঠগড় এলাকার অফিসগামী লোকজন সকাল ৯টার দিকে অফিসের উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বেরিয়ে প্রায় একঘন্টা রাস্তায় অপেক্ষা করেও কোন পরিবহন না পেয়ে অফিসে যেতে পারেননি বলে জানান। আচমকা এই গাড়ি সংকট বুঝে উঠতে পারছে না। অনেকে। কোন বাস-টেম্পু পাচ্ছে না। অথচ কোন ধর্মঘটের মত কোন কর্মসূচীও নেই।

নগরীর ওয়ারল্যাস মোড়ে গাড়ীর জন্য দাঁড়িয়ে থাকা কাজীর দেউরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি প্রধান শিক্ষিকা মাবিয়া খাতুন সিটিজিনিউজকে জানান, তিনি নিউ মার্কেট যাবেন এক ঘন্টা দাঁড়িয়ে থেকেও কোন গাড়ী পাননি। যে দু’একটি গাড়ী আসছে তাও কিছু দূর গিয়ে গ্যারেজে ঢুকিয়ে দিচ্ছে। গাড়ি পেলেও ভাড়া নিচ্ছে দ্বিগুণ।

দুপুরে জিইসি মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকা কলেজ ছাত্র শাকিল হাসনানা জানান, তিনি আগ্রাবাদ যাবেন, কিন্তু কোন গণপরিবহন পাচ্ছেন না। তিনি নিরুপায় হয়ে বাসা চলে যাচ্ছেন।

৪নং রুটের একটি গাড়ী চালক জাহাঙ্গীর বলেন, তার গাড়ীর কাগজপত্র ঠিক নেই তাই তিনি গাড়ী একেখান থেকে জিইসি পর্যন্ত চালাচ্ছেন। গাড়ী কম আর যে কোন সময় পুলিশের কাছে ধরা খাওয়ারও সম্ভাববনা আছে তাই ভাড়াও নিচ্ছেন দ্বিগুণ।

সরেজমিনে দেখা যায়, অভিযানের খবর পেয়ে ১ নম্বর রোডের (বহদ্দারহাট থেকে নিউমার্কেট) একটি বাস দ্রুতগতিতে চকবাজারের দিকে যাচ্ছিল।

উপ কমিশনার ( উত্তর-ট্রাফিক) মো. সুজায়েত ইসলাম বলেন, রাস্তায় গাড়ি চলাচলে শৃঙ্খলা আনতে সিএমপির ট্রাফিক বিভাগ কোন ছাড় দিবে না। সকল অনিয়ম রোধে আমরা পর্যায়ক্রমে ব্যবস্থা নিব। গতকাল থেকে চলমান পাঁচদিনের অভিযানে আমাদের অগ্রাধিকার হচ্ছে- রুট পারমিটবিহীন গাড়ি চলাচল বন্ধ, মোড়ে মোড়ে ও যত্রতত্র গাড়ি দাঁড়ানো, এক রুটের গাড়ি অন্য রুটে চলাচল বন্ধ করা।

সিটিজিনিউজ/এইচএম

সর্বশেষ সংবাদ


নোটিশ : “এই মাত্র পাওয়া” খবর আপনার মোবাইলে পেতে আপনার মোবাইলের ম্যাসেজ অপশন থেকে START পাঠিয়ে দিন 4848 নম্বরে ।
ctgnew
প্রধান উপদেষ্টা : আব্দুল গাফফার চৌধুরী
সম্পাদক : সোয়েব উদ্দিন কবির
ঠিকানা : ৯২ মোমিন রোড ,
শাহ আনিস মার্কেট ৫ম তলা, চট্রগ্রাম ।
মোবাইল : ০১৮১৬-৫৫৩৩৬৬
টিএন্ডটি : ০৩১-৬৩৬২০০

Design and Development by : Creative Workshop

49 queries in 1.504 seconds.