রোহিঙ্গাদের মানবিক কারনে হলেও আশ্রয় দিব : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

0
18

নিউজ ডেস্ক    ::   মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নির্যাতনের শিকার হয়ে রোহিঙ্গারা যতদিন আসবে বাংলাদেশ তাদের ততদিন আশ্রয় দেবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। মঙ্গলবার দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের নিজ কক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

কতদিন ধরে রোহিঙ্গারা এদেশে আসতে পারবে- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘মিয়ানমারের নির্যাতিত রোহিঙ্গা নাগরিকরা যতদিন ধরে বাংলাদেশে আসবে মানবিক কারণে আমরা ততদিন তাদের আশ্রয় দেবো। আমরা বিশ্বাস করি রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক।

দেশটি তার নাগরিকদের ফিরিয়ে নেবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘মিয়ানমার সরকার সে দেশে সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছিল। দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা বাংলাদেশ সফরকালে এ আমন্ত্রণ জানান। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম চলতি বছরের অক্টোবর মাসে সেখানে সফরে যাবো।

কিন্তু এরই মধ্যে রোহিঙ্গা নির্যাতন শুরু হয়। কাজেই এখন আমাদের প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি পেলে আমরা মিয়ানমার সফরে যাবো।’ মিয়ানমার সফরে গেলে কোন বিষয় নিয়ে আলোচনা হতে পারে- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়া এবং মাদকের চোরাচালান রোধ নিয়ে আলোচনা হতে পারে।’

আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ নির্যাতনের শিকার হওয়া রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেবে কিন্তু কোনও সন্ত্রাস বা বিচ্ছিন্নতাবাদীদের আশ্রয় দেবে না।’ বাংলাদেশ সীমান্তে মিয়ানমারের হেলিকপ্টার ওড়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘কোনও উস্কানিতে পা দেবে না বাংলাদেশ।

সীমান্তে মিয়ানমারের হেলিকপ্টার আসা আমাদের নিরাপত্তার জন্য হুমকি নয়, আমরা হুমকি মনেও করি না। আমরা চরম ধৈর্য্যের পরিচয় দিচ্ছি, সহ্য করছি। আমরা বিশ্বাস করি যেকোনো সমস্যা আলাপ আলোচনা করে সমাধান করবো।’

রোহিঙ্গাদের এদেশে কতদিন রাখবেন- এমন প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় আমরাও ভারতে আশ্রয় নিয়েছিলাম। ভারত আমাদের খাইয়েছিল, রেখেছিল। মানবিক কারণে আমরাও রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছি।

এ জন্য বিশ্ববাসী আমাদের ধন্যবাদ জানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রীকে সাধুবাদ জানিয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘একসঙ্গে এতো লোক প্রবেশ করলে তো একটু চাপ পরবেই। এটা মনে রেখেই আমরা তাদের আশ্রয় দিয়েছি। তবে আমাদের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো তৎপর আছে।

সিটিজি নিউজ/ এসএ  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here