ভারতের সঙ্গে দ্বি-পাক্ষিক বাণিজ্য বাড়বে : ভারতের অর্থমন্ত্রী

0
7

নিউজ ডেস্ক   ::   বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথভাবে কাজ করার অনেক ক্ষেত্র রয়েছে। যেগুলোতে সহযোগিতার মনোভাব নিয়ে কাজ করলে উভয় দেশই লাভবান হবে। দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যও বাড়বে বলে মনে করেন ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি।

তবে বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য বাড়ানোর জন্য ভারতের অশুল্ক বাধা দূর করার আহ্বান জানিয়েছেন। বিশেষ করে পাটের ওপর আরোপ করা অ্যান্টি ডাম্পিং শুল্ক প্রত্যাহারে উদ্যোগ নিতে অরুণ জেটলিকে অনুরোধ করেছেন তোফায়েল আহমেদ।

মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই আয়োজিত ‘বাংলাদেশ-ভারত ব্যবসায়ী সভায়’ দু’দেশের গুরুত্বপূর্ণ দুই মন্ত্রী এমন মতামত ব্যক্ত করেন। এ সময় দুই দেশের শীর্ষ ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন।

অরুণ জেটলি বলেন, বাংলাদেশ শুধু ভারতের প্রতিবেশী নয়, দু’দেশের মধ্যে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক সম্পর্কের পাশাপাশি শিল্প-সংস্কৃতির সম্পর্ক রয়েছে। দু’দেশের মানুষ একই রকম চিন্তা করে। বলা যায়, দু’দেশের মধ্যে আবেগঘন অন্তরের সম্পর্ক রয়েছে।

যে কারণে বাংলাদেশের উন্নয়নে ভারত সব সময় অংশীদার হতে চায়। তিনি বলেন, সীমান্ত এলাকায় বাংলাদেশ যে দুটি অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন করছে সেখানে ভারতের বিনিয়োগের সুযোগ হলে দু’দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য আরও বাড়বে।

এ ছাড়া গবেষণা, মানবসম্পদ উন্নয়ন, স্বাস্থ্য, তথ্যপ্রযুক্তি খাতে একসঙ্গে কাজ করার সুযোগ রয়েছে। ভারত তা করতেও চায়। তোফায়েল আহমেদ বলেন, ভারত বাংলাদেশের সব সময়ের বন্ধু।

২০০৯ সালের পর ভারতের সঙ্গে সে সম্পর্ক নতুন মাত্রা পেয়েছে। তিনি বলেন, বেশ কিছু পণ্যে বিএসটিআইর সনদ নেওয়ার ঘোষণা দিলেও কিছু জটিলতা রয়েছে।

এফবিসিসিআই সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে আরও বক্তব্য রাখেন ভারতের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফআইসিসিআইর প্রেসিডেন্ট পঙ্কজ প্যাটেল। পঙ্কজ প্যাটেল ভারতের ৩০ সদস্যের ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। এ সময় ঢাকাস্থ ভারতের হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলাসহ এফবিসিসিআইর নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের আমন্ত্রণে মঙ্গলবার দুপুরে তিন দিনের সফরে ঢাকা পৌঁছান ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। ভারতের একটি বিশেষ বিমানে ঢাকার কুর্মিটোলায় বিমানবাহিনীর ঘাঁটি বঙ্গবন্ধুতে পৌঁছান ভারতের অর্থমন্ত্রী। বিমানবন্দরে বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী তাকে স্বাগত জানান।

বিমানবন্দর থেকে অরুণ জেটলিকে নিয়ে যাওয়া হয় সোনারগাঁও হোটেলে। এই সফরে তিনি সেখানেই থাকবেন। ভারতের অর্থ সচিব সুভাষ চন্দ্র গর্গসহ কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের ৩০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল এ সফরে অরুণ জেটলির সঙ্গে রয়েছে।

এই সফরে তৃতীয় দফায় বাংলাদেশকে ভারতের ৪৫০ কোটি ডলারের ঋণ দেওয়ার বিষয়ে চুক্তি হবে। ২০১৭ সালের এপ্রিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের সময় বাংলাদেশের জন্য সাড়ে চারশ’ কোটি ডলার ঋণের ঘোষণা দেওয়া হয়।
সিটিজিনিউজ / এসএ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here