এবার হানিপ্রীতের নার্কো টেস্ট!

0
13

আন্তর্জাতিক ডেস্ক  ::  ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের বিতর্কিত ধর্মগুরু গুরুমিত রাম রহিম সিংহের ‘পালিতা কন্যা’ হানিপ্রীত ইনসানকে এরই মধ্যে দু’দফা জিজ্ঞাসাবাদে করা হয়েছে। কিন্তু পুলিশের দাবি, জিজ্ঞাসাবাদে তার কাছ থেকে কোনো সন্তোষজনক উত্তর মেলেনি।

এবার তাই হানিপ্রীতের নার্কো টেস্টের পরিকল্পনা করা হয়েছে। এ বিষয়ে আদালতের কাছে অনুমতি চাওয়া হবে বলে জানিয়েছে হরিয়ানা পুলিশ।

রাম রহিমের সাজার রায় ঘোষণার পর পঞ্চকুলায় সহিংসতা ছড়ানো ও আদালত চত্বর থেকে রাম রহিমকে নিয়ে পালানোর পরিকল্পনায় হানিপ্রীতের ভূমিকা নিয়ে দু’দফায় তাকে মোট ৪০টা প্রশ্ন করা হয়। পুলিশের দাবি, এর মধ্যে ১৩টি প্রশ্নের উত্তর দিতে অস্বীকার করে সে।

বাকি ২৭টি প্রশ্নের উত্তর ছিল হয় নেতিবাচক, না হলে বিভ্রান্তিমূলক। এসব উত্তরে সন্তুষ্ট না হওয়ায় তার নার্কো টেস্টের পরিকল্পনা করেছে পুলিশ। তবে জেরায় দু’টি প্রশ্নের সঠিক উত্তর বের করা গেছে। পুলিশের দাবি, হানিপ্রীত স্বীকার করেছে পালিয়ে থাকার সময়ও ডেরার সদস্যদের সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে যোগাযোগ রাখত সে।

আদিত্য ইনসানের সঙ্গেও তার যোগাযোগ ছিল। জেরায় তাকে প্রশ্ন করা হয়, ২৫ অগস্ট অর্থাৎ পঞ্চকুলায় সহিংসতা ছড়ানোর দিন ডেরার গাড়িগুলোতে প্রচুর অস্ত্রশস্ত্র মজুত করা হয়েছিল কেন? ডেরার সন্ত্রাসীদের ৫ কোটি টাকা দিয়েছিল কে? ৩৮ দিন পালিয়ে থাকার সময় মোবাইলে ব্যবহার করা সিমকার্ডগুলো তাকে কে বা কারা জোগাড় দিয়েছিল? সে এসব প্রশ্নের কোনো উত্তরই দেয়নি বলে পুলিশের দাবি।

হানিপ্রীত পুলিশকে জানায়, মোবাইল ফোন ও সিম কার্ডগুলো হারিয়ে ফেলেছে সে। পুলিশ মনে করছে, তাদের বিভ্রান্ত করতে মিথ্যা বলছে হানি। তিনটি আন্তর্জাতিক সিমকার্ডসহ তার কাছে মোট ১৭টি সিমকার্ড ছিল। পঞ্চকুলার পুলিশ কমিশনার এ এস চাওলা জানান, হানিপ্রীতকে জিজ্ঞাসাবাদের সময়সীমা বাড়াতে আদালতের কাছে আবেদন করা হবে। গত মঙ্গলবার চণ্ডীগড় থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরে জিরাকপুর-পাটিয়ালা হাইওয়ে থেকে গ্রেফতার করা হয় হানিপ্রীতকে।

এ সময় তার সঙ্গে থাকা এক নারীকেও গ্রেফতার করে হরিয়ানা পুলিশ। বাজেয়াপ্ত করা হয় তার টয়োটা ইনোভা গাড়িটিও। এরপর বুধবার তাকে আদালতে তোলা হয়। এ সময় আদালত তাকে ছয় দিন পুলিশ হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেন। সূত্র: ইন্ডিয়া টুডে।

সিটিজিনিউজ / এসএ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here