বাল্য বিয়ে বন্ধ করে দিল সাতকানিয়ার ওসি

0 16

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

সাতকানিয়া থানার ওসি মোঃ রফিকুল হোসেন এর হস্তক্ষেপে বাল্য বিবাহের কবল থেকে রক্ষাপেল ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী উম্মে হেনা তানিয়া (১৫)।

“পাত্র হ্যান্ডসাম-বিদেশে থাকে-অনেক টাকার মালিক-এই পাত্র কী হাতছাড়া করা যায় ?”-এমন কু-সংস্কার ও লোভের বশবর্তী হয়ে সাতকানিয়া থানাধীন ১৫নং ছদাহা ইউনিয়নের ছদাহা সাকিনে মোজাহের মিয়া তার ১৫ বছর বয়সী নাবালিকা কন্যা কেওচিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী উম্মে হেনা তানিয়ার সাথে সাতকানিয়া পৌরসভাধীন মধ্য রামপুর সাকিনের সৌদি প্রবাসী পাত্র মোঃ ইকবাল হোসেন (২৫) পিং-আহমেদ হোসেন এর বিবাহ দেওয়ার যাবতীয় কথাবার্তা চুড়ান্ত করে। বিবাহ হবে আগামী ১৯ অক্টোবর সন্ধ্যায়। পৌরসভা এলাকার পরশ মনি কমিউনিটি সেন্টারে তাদের বিবাহ অনুষ্ঠান। কিন্তু এই বিষয়ে থানা এলাকায় ব্যাপক পুলিশি তৎপরতা থাকায় খবর চলে আসে সাতকানিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ রফিকুল হোসেন এর কাছে। তিনি আর কাল বিলম্ব না করে উভয় পরিবারের অভিভাবকসহ সৌদি প্রবাসী পাত্র মোঃ ইকবাল হোসেনকে জরুরী তলব করেন থানায়। তারা অদ্য ১৬.১০.২০১৭খ্রিঃ তারিখ অপরাহ্নে থানায় হাজির হলে এই বাল্য বিবাহের কুফল ও এর আইনগত অপরাধের বিষয়ে তাদেরকে বুঝাতে সক্ষম হন অফিসার ইনচার্জ। এই সময়ে উপস্থিত ছিলেন সাতকানিয়া পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জনাব এনামুল কবির, কন্যার বাবা ও ফুফাত ভাই ফরিদুল আলম, পাত্রের বাবা ও চাচাত ভাই মোঃ রুবেলসহ সংশ্লিষ্ট এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

অতঃপর অফিসার ইনচার্জ এর অনুরোধে উভয় পরিবার এই বাল্য বিবাহের যাবতীয় আয়োজন বর্জন করেন। একই সাথে বুকিং দেওয়া কমিউনিটি সেন্টার, বাবুর্চি ও বিবাহের আনুষাঙ্গিক সংশ্লিষ্টদের বিবাহ স্থগিতের বিষয়ে জানিয়ে দেন। পরবর্তীতে অফিসার ইনচার্জ তাঁর নিজ কক্ষে আগত সৌদি প্রবাসী পাত্র মোঃ ইকবাল হোসেনকে ফুলের তোড়া দিয়ে শান্তনা প্রদান করেন।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.