জীবাশ্ম জ্বালানি পরিবেশ ধ্বংস করে-অর্থসচিব

0 47

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় অর্থসচিব জনাব মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী বলেছেন, ফসিল ফুয়েল/জীবাশ্ম জ্বালানি পরিবেশ ধ্বংসকারী। তাই এখন সারাবিশ্বে নবায়নযোগ্য নিয়ে ভাবছে। এটিকে এখন টেকসই হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। নবায়নযোগ্য জ্বালানিকে টেকসই ব্যবহারের মাধ্যমে আমাদের দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। যন্ত্রকৌশল ও নবায়নযোগ্য জ্বালানির গবেষণা ও সঠিক ব্যবহারে চুয়েটের এই কনফারেন্স এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এখানে সমবেত দেশ-বিদেশের গবেষকদের সাথে আমাদের দেশের প্রফেশনাল, গবেষকদের জ্ঞান ও তথ্য বিনিময় প্রকৃত অর্থেই আমাদের আরো এগিয়ে যেতে সহায়ক ভূমিকা রাখবে।

তিনি আরো বলেন, যন্ত্রকৌশল সব ধরণের কারখানায় প্রযোজ্য। শিল্প বিপ্লবের সূচনা হয়েছিল এই যন্ত্রকৌশলের হাত ধরে। এখনো সেটা সমভাবে প্রয়োজনীয়। দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য যন্ত্রকৌশল ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি বিষয়ে আরো অনেক কিছু করার আছে। আমাদের কেবল পাঠ্য বই নিয়ে পড়ে থাকলে হবে না, ইন্ডাস্ট্রির সাথে নিবিড় যোগাযোগ গড়ে তুলে প্রায়োগিক দিকগুলোর ব্যাপারেও সজাগ থাকতে হবে।

তিনি অদ্য ১৯ ডিসেম্বর (মঙ্গলবার), ২০১৭ খ্রি. চট্টগ্রাম নগরীর হোটেল লর্ডস ইন-এ চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)-এর যন্ত্রকৌশল বিভাগের আয়োজনে “4th International Conference on Mechanical Engineering and Renewable Energy (ICMERE-2017) শীর্ষক আন্তর্জাতিক কনফারেন্সের সমাপনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

যন্ত্রকৌশল অনুষদের ডীন এবং কনফারেন্স চেয়ার অধ্যাপক ড. সজল চন্দ্র বনিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চুয়েটের মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। এতে আরো বক্তব্য রাখেন চুয়েট যন্ত্রকৌশল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. জামাল উদ্দিন আহম্মদ, জাপানের সাগা ইউনিভার্সিটির মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক আকিয়ু মিয়ারা (Professor Akio Miyara) এবং কনফারেন্সের টেকনিক্যাল কমিটির সভাপতি ও যন্ত্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ মাহবুবুল আলম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কনফারেন্সের টেকনিক্যাল কমিটির সেক্রেটারি ও যন্ত্রকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান।

চুয়েটের মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেছেন, এই কনফারেন্স থেকে আধুনিক যন্ত্রকৌশল ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি বিষয়ে প্রাপ্ত গুরুত্বপূর্ণ দিক-নির্দেশনাগুলো পরবর্তীতে শিক্ষা ও গবেষণায় অত্যন্ত ফলপ্রসু ভূমিকা রাখবে। এ ধরণের কনফারেন্স আয়োজন চুয়েটের শিক্ষা-গবেষণা চলমান অগ্রগতিকে আরো এগিয়ে নেবে। আমি এই মর্যাদাপূর্ণ কনফারেন্স চর্তুথবারের মত সফলভাবে আয়োজনের জন্য যন্ত্রকৌশল বিভাগের সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

চতুর্থবারের মত আয়োজিত এই কনফারেন্সে বাংলাদেশ ছাড়াও আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, জাপান, চীন, কানাডা, দক্ষিণ কোরিয়া, ভারত, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, সৌদিআরব ও কাজাখাস্তানসহ পৃথিবীর ১১টি দেশের যন্ত্রকৌশল বিষয়ের অন্তত তিন শতাধিক শিক্ষক, গবেষক, বিজ্ঞানী, প্রফেশনাল এবং উদ্যোক্তাগণ অংশগ্রহণ করেন। উক্ত কনফারেন্সে যন্ত্রকৌশল বিষয়ের পাশাপাশি নবায়নযোগ্য জ্বালানি সর্ম্পকিত তথা বর্তমান বিশ্বের আলোচিত ইস্যু “নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও টেকসই উন্নয়ন” বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রবন্ধসমূহ উপস্থাপিত হয়েছে। এবারের কনফারেন্সে মোট ১৪৬ টি পেপার প্রেজেন্টেশন করা হয়।

কনফারেন্স আয়োজনে পৃষ্ঠপোষকতায় ছিল- কেওয়াই স্টীল, কনফিডেন্স সিমেন্ট লিমিটেড এবং ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড সার্ভিসেস (আইইএস)।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.