বাংলাদেশ ও তুরস্কের মধ্যে সমঝোতা স্মারক

0 21

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

নিউজ ডেস্ক  ::    পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণ এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের সম্প্রসারণে দুটি সমঝোতা স্মারক সই হলো বাংলাদেশ ও তুরস্ক সরকারের মধ্যে।

আজ মঙ্গলবার বেলা ৩টার দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কার্যালয়ে দুই দেশের কর্মকর্তাদের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় আলোচনার সময় এ সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

দুই দেশের সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের কর্তা ব্যক্তিরা এ সমঝোতা স্মারকে সই করেন। এ সময় তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদিরিম ও শেখ হাসিনা উপস্থিত ছিলেন।

শেখ হাসিনার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে রোহিঙ্গা সংকটের স্থায়ী সমাধান, দুই দেশের বাণিজ্য সম্প্রসারণ, বিনিয়োগ, পর্যটনসহ নানা বিষয় উঠে আসে।

বৈঠক শেষে যৌথ বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তুরস্কের ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘তুরস্কের ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ করারও আহ্বান জানাচ্ছি। দেশে যে অর্থনৈতিক অঞ্চল তৈরি হচ্ছে প্রয়োজনে তার মধ্য থেকে একটি তাদের জন্য দেওয়া হবে।’

এ সময় বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রায় পাশে থাকার আশাবাদ ব্যক্ত করেন তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদিরিম। এছাড়া তিনি বাংলাদেশে চলমান রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়েও কথা বলেন। সব আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বাংলাদেশের পাশে থাকার আহ্বান জানিয়ে তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদিরিম বলেন, ‘রোহিঙ্গা সংকটের রাজনৈতিক সমাধান না হওয়া পর্যন্ত জাতিসংঘসহ সব আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বাংলাদেশের পাশে থাকার আহ্বান জানাচ্ছি। বাংলাদেশের সঙ্গে মিয়ানমারের চলমান আলোচনার মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান মিলবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

এ ছাড়া ফিলিস্তিনের নাগরিকদের ওপর ইসরায়েলের সামরিক বাহিনীর আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ও জেরুজালেম প্রশ্নে বাংলাদেশের অবস্থানেরও প্রশংসা করেন বিনালি ইলদিরিম। যৌথ বিবৃতিতে দুই দেশের সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় করার প্রতিশ্রুতি রেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বক্তব্যে বলেন, ‘আন্তর্জাতিক ও দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন ইস্যুতে একসাথে সমঝোতার ভিত্তিতে কাজ করবে বাংলাদেশ ও তুরস্ক।

বিশেষ করে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিক রোহিঙ্গাদের সসম্মানে নিজ দেশে ফেরাতে আমরা একসাথে কাজ করব।’ বিকেল ৩টায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে একান্ত বৈঠক ও পরে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পরে আজ সন্ধ্যায় তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। এরপর রাতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে নৈশভোজে অংশ নেন তিনি।
সিটিজিনিউজ / এসএ

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.