১১ ডাকাত গ্রেফতার ও সরঞ্জাম দেখে বিস্মিত পুলিশও

0 54

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

হাকিম মোল্লা: নগরীর লাভলেইন রোডের কাদিয়ানি মসজিদের সামনে ছিনতাইয়ের শিকার হন কলেজ ছাত্র ইমতিয়াজ।ঘটনাটি নগর গোয়েন্দা পুলিশকে জানানো হয়। এরপরই অভিযানে যায় নগর গোয়েন্দা পুলিশ।  গ্রেফতার করা হয় ১১ পেশাদার ডাকাতকে যা পুলিশ কর্মকর্তাদের চক্ষুচড়ক গাছ,এ যেন রীতিমত ডাকাতদের রাজ্য দখলে নেওয়া। লুণ্ঠিত টাকা, মোবাইলসেট ও ঘটনায় ব্যবহৃত ডিবি জ্যাকেট, ওয়্যারলেস সেট, খেলনা পিস্তল, হ্যান্ডকাপ, ০২টি মোটর সাইকেল ও ০১টি সিএনজি !

মঙ্গলবার(২ জানুয়ারি)  বেলা ২টা থেকে বুধবার (৩ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে তাদের  গ্রেফতার করা হয়। অভিযানে সার্বিক দিক নির্দেশনা প্রদান করেন মহানগর গোয়েন্দা (উত্তর)বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার হাসান মোঃ শওকত আলী। পরে আসামী সহ জব্দকৃত মালামাল পুলিশ সদরদপ্তরে নিয়ে আসলে এতো ডাকাত সদস্য ও মালামাল দেখে চোখ কপালে ওঠে সংবাদকর্মীদেরও।

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (উত্তর)বিভাগ বলছে, গত ২৮ ডিসেম্বর  সিএমপি কোতোয়ালী থানাধীন লাভলেইন রোডস্থ কাদিয়ানি মসজিদের সামনে রাস্তার উপর হতে বিকাল আনুমানিক ৪টায় ০৩নং রুটে চলাচলরত টাউন সাভির্সের বাসের যাত্রী চট্টগ্রাম সিটি কলেজের অনার্সে অধ্যয়নরত ইমতিয়াজ উদ্দিন@ইমন (২২) কে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে গাড়ী হতে জোর পূর্বক নামিয়ে একটি সিএনজি‘তে তুলে নেয়। পরবর্তীতে তার নিকট ইয়াবা ট্যাবলেট আছে অভিযোগ তুলে তার কাছে থাকা কলেজ ব্যাগ তল্লাশির নামে ছিনিয়ে নেয়,  যেখানে তার দুবাই প্রবাসী মামার প্রেরিত নগদ ১ লাখ ৬৭ হাজার টাকা, কলেজের বই খাতা ছিল এবং তার মানিব্যাগে থাকা নগদ ১৩’শ টাকাসহ ব্যবহৃত ২টি মোবাইল সেটও ছিনিয়ে নেয়।

পরবর্তীতে তাকে  লাভলেইন হতে সিএনজিতে করে সিআরবি পলোগ্রাউন্ড রাস্তায় নিয়ে যায় এবং ব্যাগ ভর্তি টাকাসহ সিএনজিতে থাকা ১জন ডাকাত তার সহযোগী ০২টি মোটর সাইকেলের ০১টিতে উঠে। সিএনজিতি থাকা অপর ০২ ডাকাত তার সিএনজি‘তে করে কদমতলী হয়ে দেওয়ানহাট হতে ষ্টেশনগামী ফ্লাইওভারে উঠাইয়া মাঝামাঝি নির্জন রাস্তায় মারধর ফেলে দেয়। ইমতিয়াজ উদ্দিন সিএনজি‘র পিছনে পিছনে দৌড়ে সিএনজির পিছনে থাকা বড় অক্ষরের নম্বর দেখে নেয়। পরবর্তীতে সে বিষয়টি তাহার আত্মীয়স্বজনকে অবহিত করে। গত মঙ্গলবার (২ জানুয়ারি) ইমতিয়াজ উদ্দিন তাহার আত্মীয় স্বজনের সঙ্গে আলোচনা করে প্রথমে ডিবি অফিসে হাজির হয়ে মৌখিকভাবে বিষয়টি অবহিত করে। গোয়েন্দা বিভাগের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করে দ্রুত কার্য্যকরী ব্যবস্থা গ্রহনের লক্ষ্যে উত্তর বিভাগের কর্মরত অফিসার ও ফোর্সদের নির্দেশনা প্রদান করেন এবং বাদীকে বিষয়টি কোতোয়ালী থানায় অভিযোগ দাখিলের জন্য প্রেরন করেন।

চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি উদ্ঘাটনসহ প্রকৃত অপরাধীদের আইন-আমলে আনার লক্ষ্যে মহানগর গোয়েন্দা (উত্তর)বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার হাসান মোঃ শওকত আলী, এঁর সার্বিক দিক নির্দেশনায় অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার(উত্তর)  মোঃ কামরুজ্জামান, পিপিএম, সহকারী পুলিশ কমিশনার(উত্তর)  কাজল কান্তি চৌধুরী‘র তত্ত্বাবধানে ৪নং টিমের পুলিশ পরিদর্শকন (নিরস্ত্র) মোঃ ইলিয়াছ খান এর নেতৃত্বে এসআই(নিঃ) মোঃ আব্দুল মোনাফ, এসআই(নিঃ) মোঃ রায়হান উদ্দিন, এসআই(নিঃ) মোঃ আলা উদ্দিন, এএসআই/শিবু চন্দ্রসহ সঙ্গীয় ফোর্স সহ অভিযানে নামে। একটানা অভিযান চালিয়ে মহানগরীর বিভিন্ন থানা এলাকা হতে  ডাকাতির ঘটনায় জড়িত সংঘবদ্ধ ডাকাত দলের ১১ সদস্যকে  গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

পরে গ্রেফতারকৃত আসামীদের স্বীকারোক্তিমতে  ডাকাতির ঘটনায় ব্যবহৃত ০১টি সিএনজি, ০২টি মোটর সাইকেল, ০১টি ওয়ারলেস সেট, ০১জোড়া হ্যান্ডকাপ, ০২টি ডিবি জ্যাকেট, ০১টি ডামি পিস্তল, লুণ্ঠিত ০২টি মোবাইল সেট ও লুণ্ঠিত টাকার মধ্যে ৩২ হাজার ৫০০ টাকা উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে।

এ ঘটপনায় দায়েরকৃত মামলাটি তদন্ত প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান, উপ-পুলিশ কমিশনার হাসান মোঃ শওকত আলী।

গ্রেফতারকৃত আসামীরা হল : হারাধন দাশ@ধনি(৩৭) পিতা-অবিরত দাশ মাতা-মেরিদাশ স্ত্রী-জলি দাশ সাং-পদুয়া রাজারহাট, থানা-রাঙ্গুনিয়া, বর্তমানে-ফ্রিপোর্ট, বাহাদুর কলোনী, থানা-ইপিজেড, মোঃ মামুন উদ্দিন @ মামুন(৩৫) পিতা-নুরুল আলম, মাতা-মৃত মোমেনা খাতুন, সাং-পাইন্দং, হাইদ চকিয়া, ছমদ বাড়ী, থানা-ফটিকছড়ি, ে । বর্তমানে-০২নং গেইট মসজিদ গলি, জাহেদের ভাড়াটিয়া থানা-পাঁচলাইশ, মোঃ কাইছার হামিদ @ রাজু(৩১) পিতা-আব্দুল মালেক মাতা-আনোয়ারা বেগম সাং-৩৯নং বাটালী রোড, এনায়েত বাজার, থানা-কোতোয়ালী, মোঃ জাহেদুল আজম (৩৫) পিতা-নুরুল ইসলাম, মাতা-হোসনেআরা বেগম স্ত্রী-শামীমা আক্তার সাং-উত্তর ধুরং, বাচামিয়া পেয়াদার বাড়ী, থানা-ফটিকছড়ি, বর্তমানে-ঝর্নাপাড়া কালু ড্রাইভারের বাড়ী, থানা-ডবলমুরিং, মোঃ শাহেদ রানা@সাহেদ(৩১) পিতা-মৃত গুলজার হোসেন মাতা-মৃত রাজিয়া বেগম, স্ত্রী-জহুরা বেগম সাং-কদমতলী রওশন মসজিদ লেইন, গুলজার হোসেন মিয়ার বাড়ী, থানা-সদরঘাট, মোঃ শওকত আলী @মানিক (৩২) পিতা-মোহাম্মদ আলী মাতা-রোকেয়া বেগম, সাং-বলির মসজিদ (লাষ্ট মাথা), হারুন বিল্ডিং, থানা-বাকলিয়া, সেলিম মাহমুদ@সেলিম(৪৪) পিতা-মৃত হাজী নূর আহম্মদ মাতা-মৃত হাসিনা বেগম, স্ত্রী-বেবী আক্তার সাং-উত্তর ঘাটচেক, কশিনার বাড়ী, থানা-রাঙ্গুনিয়া, বর্তমানে-চন্দ্রিমা আ/এ, ০১নং রোড, বাড়ী নং-২৮, ২য় তলা(ডান দিকে), থানা-চান্দগাঁও, রেজাউল করিম(৫১) পিতা-মৃত আবুল কাশেম মাতা-রৌশন আরা, স্ত্রী-ফারজানা বেগম সাং-নোয়াপাড়া, চৌধুরী বাড়ী, কলেজের পশ্চিম পার্শ্বে, থানা-রাউজান, বর্তমানে-৭৫৯ শুলকবহর আল আমিন রোড, থানা-পাঁচলাইশ, মোঃ রুবেল (৩০) পিতা-মৃত জেবল হোসেন, মাতা-মৃত রমিজা খাতুন, স্ত্রী-শাহিনা আক্তার, সাং-সুন্দরপুর, ছোট ছিলনিয়া, আকবর হাজীর বাড়ী, থানা-ফটিকছড়ি, বর্তমানে-অক্সিজেন জহির স্টোর, হাশেম কলোনী, থানা-বায়েজীদ বোস্তামী, মোঃ জাসেদুল করিম @ বাবুল (৩৫) পিতা-মৃত ফজল করিম মাতা-নূর বেগম স্ত্রী-আসমা আক্তার সাং-ওখারা, সমিতির হাট. হংশ তালুকদার বাড়ী, থানা-ফটিকছড়ি, মোঃ মাসুদ (২৮) পিতা-ফারুক মুন্সি, মাতা-সালমা বেগম, স্ত্রী-রেখা বেগম, সাং-পূর্ব চরমত, ০৯নং ওয়ার্ড, মতির বাপের বাড়ী, থানা-লালমোহন, জেলা-ভোলা। বর্তমানে-খরমপাড়া, খাজা রোড, শওকত এর ভাড়া ঘর, থানা-চান্দগাঁও, চট্টগ্রাম(সিএনজি চালক)।

উদ্ধারকৃত লুন্ঠিত মালামালের মধ্যে রয়েছে  ০১টি এইচটিসি মোবাইল সেট, ০১টি নোকিয়া মোবাইল সেট ও নগদ ৩২ হাজার ৫০০টাকা।

উদ্ধারকৃত ঘটনায় ব্যবহৃত জিনিসের মধ্যে রয়েছে, ০১টি সিএনজি (চট্টমেট্টো-থ-১২-০৪৬৪), ০১টি লাল রংয়ের পালসার মোটর সাইকেল (রেজিঃচট্টমেট্টো-ল-১১-৭২৫৩), ০১টি ডিসকভার মোটর সাইকেল (রেজিঃচট্টমেট্টো-ল-১১-৭৭৮০), ০১টি মোটরলা ওয়্যারলেস সেট, ০১(এক)জোড়া হ্যান্ডকাপ, ০২(দুই)টি জ্যাকেট ও পিস্তুল সদৃশ একটি খেলনা পিস্তল।

সিটিজিনিউজ/এইচএম

 

 

 

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.