সরব দারুল ফজল মার্কেটের নগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়

0

সরব হয়েছে দারুল ফজল মার্কেটের নগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়। ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পাবার পর প্রথমবারের মতো নগর আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে গেছেন মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী। এসময় তার সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনও ছিলেন। ৎ

দুই শীর্ষ নেতার উপস্থিতিতে সরব হয়ে ওঠে প্রায় নগরীর দারুল ফজল মার্কেটের নিষ্প্রাণ দলীয় কার্যালয়টি।

সোমবার (০৮ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় নগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে যান মাহতাব উদ্দিন ও আ জ ম নাছির উদ্দিন। দুই নেতার দলীয় কার্যালয়ে যাবার খবর শুনে সেখানে যান কার্যনির্বাহী কমিটির অন্যান্য নেতারাও। নগরীর বিভিন্ন থানা-ওয়ার্ডের বেশ কয়েকজন নেতাও সেখানে যান।

সভায় প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর স্মরণসভা নিয়ে আলোচনা হয়। এর আগে রোববার উত্তর দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকরা মহিউদ্দিনের স্মরণসভার প্রস্তুতি নিয়ে বৈঠক করেন। সেই বৈঠকের আলোচ্য বিষয় নগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির নেতাদের জানিয়েছেন মাহতাব উদ্দিন।

একইসঙ্গে স্মরণকালের সবচেয়ে বড় স্মরণসভা করতে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতির বিষয়েও আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নগর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুক।

তিনি  বলেন, সিদ্ধান্ত হয়েছে স্মরণসভার জন্য ১০ হাজার পোস্টার ছাপানো হবে। নগরীর প্রত্যেক ওয়ার্ড থেকে ব্যানার নিয়ে মিছিল করে নেতাকর্মীরা আসবেন। প্রত্যেক সাংগঠনিক জেলা ও উপজেলা থেকে বাসে করে নেতাকর্মীদের আসার জন্য বলা হয়েছে।

এছাড়া আগামী ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে পুষ্পস্তবক অর্পণ, ১১ জানুয়ারি সকাল ১০টায় এম এ আজিজের কবরে পুষ্পস্তবক ও আলোচনা অনুষ্ঠান এবং ১৩ জানুয়ারি সরকারের চার বছর পূর্তি উপলক্ষে লালদীঘি চত্বর থেকে শোভাযাত্রার কর্মসূচি চূড়ান্ত হয়েছে।

নগর আওয়ামী লীগের নেতাদের মধ্যে সহ-সভাপতি নঈম উদ্দিন ও সুনীল সরকার, যুগ্ম সম্পাদক রেজাউল করিম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান ও হাসান মাহমুদ হাসনী এবং সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য শফিকুল ইসলাম ফারুক, ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর ও মশিউর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

শফিকুল ইসলাম ফারুক বলেন, মহিউদ্দিন ভাই মারা যাবার পর দলীয় কার্যালয়ে মাহতাব উদ্দিন ও আ জ ম নাছির উদ্দিন অধিকাংশ নেতা একসঙ্গে এসেছেন। এতে অফিস চাঙ্গা হয়েছে। আমরা সবাই একসঙ্গে মিলে মহিউদ্দিন ভাইয়ের স্মরণসভা করব। এই সভা হবে স্মরণকালের ‍বৃহৎ সভা।

গত ১৪ ডিসেম্বর গভীর রাতে নগরীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চট্টলবীর খ্যাত এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী। এরপর দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথম সহ-সভাপতি মাহতাবকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব দেন।

সিটিজিনিউজ/এইচএম 

Share.

Leave A Reply