বীমার চেক পেল মৃত ব্যক্তির পরিবার

0

জীবন  বীমা পলিসি নাগরিকদের ভবিষ্যৎ জীবনে একটি বড় নিয়ামক শক্তি, এতে কোন সন্দেহ নেই।পৃথিবীর উন্নত দেশগুলো তাদের নাগরিকদের সামাজিক নিরাপত্তার জন্য বীমাকে বাধ্যতামূলক করেছে।

উন্নত দেশে বীমাকে সরকারি ভাবে অগ্রাধিকার দিয়ে চালু রাখার কারণে সে সব দেশের জনগোষ্ঠী তার সুফলও পাচ্ছে।

চট্টগ্রাম নগরীর দক্ষিণ মধ্যম হালিশহরে মৃত ব্যক্তির নমিনির হাতে চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে বক্তারা এ কথা বলেন। তারা আরো বলেন, বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের অর্থনীতির ক্ষেত্রে বীমা একটি শক্তিশালী অবস্থান সৃষ্টিতে সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারে।

তাই বীমা ব্যবসা প্রসারের পাশাপাশি এই শিল্পের সময়োপযোগী পলিসি চালুর বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনায় নেয়া, এখন অপরিহার্য হয়ে দাঁড়িয়েছে।

লাইফ ইনস্যুরেন্স কর্পোরেশোন (এলআই সি) লিমিটেডের চট্টগ্রাম অফিসের উদ্যেগে ব্রাঞ্চ ইনচার্জ আরিফুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও ব্রাঞ্চ ম্যানেজার জসিম উদ্দিনের সঞ্চালনায় আজ ১৭ ফেব্রুয়ারি বেলা দুইটায় মৃত লাভলু বৈদ্যের মরণোত্তর বীমা দাবির ২লক্ষ টাকার চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এলআইসি বাংলাদেশের এমডি অরূপ দাশ গুপ্ত ও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অত্র এলাকার মহিলা ওয়ার্ড কাউন্সিলর আফরোজা কালাম আজাদ ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অরূপ দাশ বলেন,বীমা ব্যবসা প্রসারের জন্য যত বেশি প্রচারের ব্যবস্থা করা যাবে ও গ্রাহককে উন্নত সেবা দান করা সম্ভব হবে, তখন বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠী বীমা গ্রহণে আগ্রহী হবে। পাশাপাশি বীমা ব্যবসা কার্যক্রম তৃণমূল পর্যায়ে নিয়ে গেলে দেশের বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠী এতে উপকৃত হবে।

তিনি আরো বলেন মাত্র পাঁচ দিনের মধ্যে আমরা লাভলু বৈদ্যের বীমার টাকা তার পরিবারের কাছে দিতে সক্ষম হয়েছি। অনুষ্ঠান শেষে লাভলু বৈদ্যের মরণোত্তর বীমা দাবির ২লক্ষ টাকার চেক তার নমিনি রুবেল বৈদ্যের কাছে হস্তান্তর করেন তিনি।

সিটিজিনিউজ / এসএ

Share.

Leave A Reply