শ্যামলের তৈরি ইয়াবা দেশজুড়ে ছড়িয়েছে আমান 

0 21

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

ছবি-আকমল হোসেন/সিটিজিনিউজ

 হাকিম  মোল্লা:  নগরীতে একটি ফ্ল্যাটে ইয়াবা তৈরির কারখানার সন্ধান পেয়েছে নগর গোয়েন্দা পুলিশ। পুলিশের দাবী এই কারখানাটিই প্রথম। ইয়াবা তৈরি থেকে বাজারজাত সমস্ত প্রক্রিয়াকরণ করা হতো ঐ বহুতল ভবন থেকেই।

বুধবার (২৭ ডিসেম্বর) দুপুর ২টায় নগরীর লালদিঘীর পাড়ে অবস্থিত নগর পুলিশের দপ্তরে এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন মহানগর গোয়েন্দা বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি-পশ্চিম) এএএম হুমায়ুন কবির।

সংবাদ সম্মেলনে হুমায়ুন কবির বলেন নগরীর ডবলমুরিং থানাধীন বেপারীপাড়া কমিশনার গলির আবুল হোসেন সওদাগরের ৫ম তলা বিল্ডিংয়ের ৩য় তলার মধ্যম ফ্ল্যাটে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ইয়াবা তৈরির ২টি  মেশিন এবং আড়াই লাখ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট সহ চারজনকে গ্রেফতার করে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হল, শ্যামল মজুমদার (৩৭), আব্দুল্লাহ আল আমান @ আমান (৩৪), মোঃ মামুন হোসেন @ মামুন (৩২), ৪) আয়শা সিদ্দিকা (২৭)।

২৬ ডিসেম্বর রাতে নগর গোয়েন্দা পুলিশের ওই অভিযানে নেতৃত্ব দেন  বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি-পশ্চিম) এএএম হুমায়ুন কবির। তার সঙ্গে সহকারী পুলিশ কমিশনার (ডিবি-পশ্চিম), পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ মহসীন, পিপিএম, পুলিশ পরিদর্শক মোঃ কামরুজ্জামান, এসআই আব্দুর রব, এএসআই বাপ্পু সেন,এএসআই আলী হোসেন ও সঙ্গীয় ফোর্স অংশ নেন।

উপ-পুলিশ কমিশনার হুমায়ুন কবির বলেন, আমরা অনেকদিন ধরেই ইয়াবা কারখানাটিকে নজরদারিতে রাখি। কিন্তু মূল অভিযান চালানো হয় মঙ্গলবার রাতে।

অভিযানে অংশ নেওয়া সহকারি পুলিশ কমিশনার (ডিবি-পশ্চিম), পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ মহসীন জানান, ডবলমুরিং থানাধীন বেপারীপাড়া কমিশনার গলি আবুল হোসেন সওদাগরের ৫ম তলা বিল্ডিংয়ের ৩য় তলার মধ্যম ফ্ল্যাটে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করি। ফ্ল্যাটটিতে ২ লাখ ৫০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, তিনটি সাদা প্লাষ্টিকের বস্তায় পলিথিনে মোড়ানো লাল গোলাপী রংয়ের ইয়াবা ট্যাবলেট তৈরির কাঁচামাল (এ্যামফিটামিনযুক্ত পাউডার), তিনটি সাদা প্লাষ্টিকের বস্তায় পলিথিনে মোড়ানো সাদা রংয়ের ইয়াবা ট্যাবলেট তৈরির পাউডার, ইয়াবা ট্যাবলেট তৈরির লোহার মেশিন দুটি, ইয়াবা ট্যাবলেট তৈরির স্টিলের ডাইস চারটি (একটির উপর ইংরেজীতে ‘জ’ এবং একটির উপর ইংরেজীতে ‘ডণ’ খোদাই করে লেখা আছে), লোহার তৈরি প্রেশার মেশিন দুটি, ডিজিটাল স্কেল একটি, একটি সাদা জারে ইয়াবা ট্যাবলেট তৈরি কাজে ব্যবহৃত চার লিটার তরল গোলাপী রং উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধারকৃত মালামাল দিয়ে প্রতিদিন ৩ হাজার পিস ইয়াবা তৈরি করে বাজারে বিক্রি করতো। উদ্ধারকৃত ইয়াবা তৈরির উপকরণ দিয়ে আরও ১০ লাখ টাকার ইয়াবা তৈরি করতে পারতো বলে জানান সহকারি পুলিশ কমিশনার

মোহাম্মদ মহসীন জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামী শ্যামল ও মামুন ইয়াবা তৈরির কারিগর তা স্বীকার করেছে। তারা দুজন স্থানীয় বাজার হতে ইয়াবা তৈরীর বিভিন্ন কাঁচামাল সংগ্রহ পূর্বক মেশিনের মাধ্যমে ইয়াবা ট্যাবলেট তৈরি করে অপর আসামী আমান এর মাধ্যমে চট্টগ্রাম মহানগরী সহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বিক্রয় করে। মূলত শ্যামলের তৈরি ইয়াবা দেশজুড়ে ছড়িয়েছে আমান।

গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে ডবলমুরিং থানায় নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়। পরে তাদের আদালতে তোলা হলে   চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

সিটিজিনিউজ/এইচএম

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.