পদ্মাপাড়ের সৌন্দর্য বাড়ানোর পরিকল্পনা রাজশাহী সিটির

297
 সিটিজিনিউজ ডেস্ক: |  সোমবার, মার্চ ১, ২০২১ |  ৩:০৭ অপরাহ্ণ

রাজশাহীর বিনোদন পিপাসুদের প্রিয় স্থান পদ্মাপাড়ের সৌন্দর্য বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়েছে সিটি করপোরেশন। এজন্য একটি প্রকল্পও হাতে নেয়া হয়েছে। সিটি মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন জানিয়েছেন, সব কাজ শেষে হলে রাজশাহীর পদ্মা আকর্ষণ বাড়াবে।

বুলনপুর থেকে বড়কুঠি ও পঞ্চবটী হয়ে সাতবাড়িয়া। প্রায় ১২ কিলোমিটার পদ্মাপাড় এখন রাজশাহী নগরীর বিনোদনের সেরা ঠিকানা।

Advertisement

সকাল-দুপুর-বিকেল, প্রাণচাঞ্চল্যে মুখর। পদ্মাপাড়ের সৌন্দর্য বাড়াতে এরইমধ্যে নির্মিত হয়েছে ওয়াকওয়ে ও দৃষ্টিনন্দন আলপনা আঁকা এই ঝুলন্ত সেতু।

বিনোদন পিপাসুরা জানান, আগে অনেকটাই অস্বচ্ছল অবস্থায় ছিল। এপাশ দিয়ে যাওয়া-আসা করা যেতো না। এখন অনেক পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন এজন্য ভালো লাগছে। সবাই বলছে খুবই সুন্দর, অসাধারণ হয়েছে।

পদ্মাপাড়ে সামান্য হাঁটাপথ পেরোলেই চোখে পড়ে সুদৃশ্য গ্যালারিসমৃদ্ধ মুক্তমঞ্চ। এটি লালন শাহ পার্ক। আঁকাবাঁকা সিঁড়ির মতো সাজানো গ্যালারিতে বসে অনায়াসে দেখা যায় পদ্মার রূপ।

আগতরা জানান, সবাই আসছে, মজা করছে, আনন্দ করছে। বিকেল হলে বাচ্চাকাচ্চা নিয়ে ঘুরতে আসতে পারছি।

পদ্মা পাড়ের সৌন্দর্য বাড়াতে নেয়া হয়েছে আরও কিছু প্রকল্প। কাজ শেষ হলে মানুষকে আরও বেশি আকর্ষণ করবে পদ্মার তীর।

রাজশাহী সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী শরিফুল ইসলাম বলেন, পর্যায়ক্রমে যদি এইগুলোর অনুমোদন পাই, তখন আরও শোভবর্ধন কাজের প্রয়াস চালাবো আমরা।

রাজশাহী সিটির মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, নদীর তীরটিকে আরও বেশি মানুষের জন্য উপস্থাপন করতে চাই। সেখানে যাতে মানুষ তাদের সন্তানদেরকে নিয়ে আসতে পারে, এখানে বাচ্চারা নাটক, গান-বাজনা বা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করতে পারে।

রাজশাহী মহানগরীকে সবুজের নান্দনিকতায় বহুমাত্রিক নাগরিক সুবিধায় অত্যাধুনিক নগরে পরিণত করতে চায় সিটি করপোরেশন।

এন-কে

Advertisement