নিজেদের নির্দেশনা মানছে না স্বয়ং চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন!

309
 নিজস্ব প্রতিবেদক |  শনিবার, মার্চ ২৭, ২০২১ |  ১০:৫৪ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামবাসীর জন্য ৭ শর্ত সম্বলিত স্বাস্থ্যবিধি মানার নির্দেশনা দিয়ে খোদ চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনই মানছে না সেই আদেশ। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে একসাথে ২৮৫ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সংবর্ধনা দিয়ে স্বাস্থ্যবিধির সে নির্দেশনা ভঙ্গ করেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন।

২৬ মার্চ শুক্রবার নগরীর সার্কিট হাউসে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে চট্টগ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়। ঐ অনুষ্ঠানে ২৮৫জন মুক্তিযোদ্ধারা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন প্রায় শতাধিক মানুষ, যা চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন কতৃর্ক নির্দেশিত আদেশের পরিপন্থী।

Advertisement

এর আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণসহ বাংলাদেশের উন্নয়নের গৌরবময় অর্জনকে স্মরণীয় করতে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে দুই দিনব্যাপী মেলা আয়োজন করার ঘোষণাও দেয় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন।

আরও পড়ুন: দেশের অর্জনকে স্মরণীয় করতে জেলা প্রশাসনের দুই দিনের মেলা

সরেজমিনে দেখা গেছে, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধাদের স্বজন, সাংবাদিক,জেলা প্রশাসনে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত দর্শকদের মধ্যে অনেকেই জেলা প্রশাসনের এই আয়োজনের সমালোচনা করেন। তাদের অভিমত, যেখানে জেলা প্রশাসন  নিজেদের নির্দেশনা অমান্য করছে সেখানে সাধারণ মানুষ স্বাস্থ্যবিধির এই নির্দেশনা কতটুকু মানবে ?

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন নগরীর আগ্রাবাদ এলাকার বাসিন্দা সাইদুল ইসলাম। তিনি জেলা প্রশাসনের স্বাস্থ্যবিধি নির্দেশিকার সমালোচনা করে সিটিজিনিউজকে বলেন, জেলা প্রশাসন নিজেরাই বললো ১০০ জনের বেশি লোক সমাগম করা যাবেনা একই সাথে স্বাস্থ্যবিধির ‘তিনফুট’ দূরত্ব মানতে হবে। অথচ জেলা প্রশাসনের সেদিনের আয়োজনে স্বাস্থ্যবিধির নির্দেশনা নিজেরাই বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নগরবাসীকে আদেশ দিয়ে নিজেরাই যদি সে আদেশনামা অমান্য করে তা হলে সাধারণ মানুষ আর কতটুকু মানবে।

সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সাধারণ সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার সিটিজিনিউজকে বলেন, প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তারা যদি নিজেদের নির্দেশনা নিজেরাই না মানেন তাহলে আইনের শাসন কিভাবে প্রতিষ্ঠিত হবে? এরকম হলে জনগণ তাদের প্রতি আস্থা হারাবে। তাদের এ ধরনের বিভ্রান্তকর কর্মকাণ্ডের কথা শুনে আমরা নিজেরাও বিব্রত হই।

এসব ব্যাপারে জানতে চাইলে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মমিনুর রহমান বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে হয়েছে। আমরা উপস্থিত সকলকে মাস্ক এবং হ্যান্ডস্যানিটাইজার নিশ্চিত করে অনুষ্ঠানে প্রবেশের অনুমতি দিয়েছি। সরকারের যেকোনো সিদ্ধান্ত আমাদের মানতে হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের নির্দেশনায় ছিল ১০০ জনের বেশি মানুষ অনুষ্ঠানে নিরুৎসাহিত করা। কিন্তু ১০০ জনের বেশি যে হতে পারবে না সে কথা আমরা বলেনি।

প্রতিবেদকের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তাই বলে ২০০০ হাজার মানুষ অনুষ্ঠানস্থলে জড়ো হওয়া যাবেনা। যতই মাস্ক এবং স্যানিটাইজের ব্যবস্থা করা হোক।

পরে এ প্রতিবেদককে তিনি তিরস্কার করে বলেন, আপনার যুক্তিতর্ক আমার কাছে বেশ ভালো লেগেছে এবং শ্রদ্ধায় মাথা অবনত হয়ে আসছে। আপনার মতো দেশে যদি এতো সচেতন সাংবাদিক থাকতো তাহলে এমন অবস্থা হতো না…হা..হা..হা।

ইউআর/ জেইউএস/এসএম/এসকে

Advertisement